শিরোনাম
  • রাজধানীতে গুলি করে আড়াই লাখ টাকা ছিনতাই

  • সিলেটে জাল টাকা ও মেশিনসহ ৩ জন আটক

  • শৈলকূপায় গলিত লাশ উদ্ধার
  • বাসের মধ্যে প্রসব, সহৃদয় চালক নিয়ে গেলেন হাসপাতালে
  • মুন্সীগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানের স্ত্রীর লাশ উদ্ধার
  • টাঙ্গাইলে নারী এনজিও কর্মীকে কুপিয়ে টাকা ছিনতাই
চিরসত্য
মানবকূলকে মোহগ্রস্ত করেছে নারী, সন্তান-সন্ততি, রাশিকৃত স্বর্ণ-রৌপ্য, চিহ্নিত অশ্ব, গবাদি পশুরাজি এবং ক্ষেত-খামারের মত আকর্ষণীয় বস্তুসামগ্রী। এসবই হচ্ছে পার্থিব জীবনের ভোগ্য বস্তু। সুরা আল ইমরন, আয়াত-১৪
সাম্প্রতিক
প্রবন্ধ
বগুড়ায় স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুণ্ডাদেশ

বগুড়া সদরে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা মামলায় স্বামী কে মৃত্যুদণ্ডাদেশ  দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার বগুড়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক এসএম সাইফুল ইসলাম এ মামলায় রায় ঘোষনা করেন। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি বগুড়ার নামুজা বগারপাড়া গ্রামের মৃত ইশা ফকিরের পুত্র রিয়াজ উদ্দিন (৫৬)। তিনি কারাগারে বন্দি রয়েছেন। তার উপস্থিতিতে রায় ঘোষনা করেণ বিচারক।

 

 

আদালত সুত্রে জানা যায়, বগুড়া সদরের নামুজার বগারপাড়া গ্রামের মৃত মহির উদ্দিনের কন্যা পিয়ারা খাতুনের সাথে একই এলাকার শাহপাড়ার ইশা ফকিরের পুত্র রিয়াজ উদ্দিনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের সংসারে ৩ পুত্র সন্তানের জন্ম হয়। রিয়াজ উদ্দিন যৌতুকের টাকার জন্য পিয়ারাকে প্রায়ই নির্যাতন করতো। নির্যাতন করার পরেও সংসার টিকিয়ে রাখার জন্য পিয়ারা খাতুন সব সহ্য করে যেতেন।

 

 

এক পর্যায়ে গত ১৯৯৭ সালের ১৯ এপ্রিল নিজ বাড়িতে পিয়ারা খাতুনকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করে স্বামী রিয়াজ । হত্যার ঘটনায় মৃত পিয়ারার ভাই মমতাজ উদ্দিন ওই দিনই রিয়াজ উদ্দিনকে প্রধান করে ছয় জনের বিরুদ্ধে বগুড়া সদর থানায় একটি হত্যা মামলা করে।

 

 

মামলার তৎকালিন তদন্তকারী কর্মকর্তা টিএসআই হুমায়ুন কবির ওই বছরের ১৯ আগস্ট আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন। এ মামলায় আদালতের বিচারক দীর্ঘ শুনানী শেষে অভিযুক্ত পাঁচজনকে বেকসুর খালাস প্রদান করেণ এবং প্রধান আসামী রিয়াজ উদ্দিনের মৃত্যুদণ্ডের রায় প্রদান করেণ।

 

 

এ মামলায় রাষ্ট্র পক্ষের আইনজীবী ছিলেন মোঃ মনতেজার রহমান মন্টু এবং আসামি পক্ষে ছিলেন রজত কুমার ঘোষ ও ফজলুল হক।

Back To Top